Category: তন্ত্র-মোহন

সমগ্র জগৎ মোহিত করা

সমগ্র জগৎ মোহিত করাঃ বিল্বপত্র ছায়ায় শুকাইয়া লইতে হইবে, তৎপরে ঐ পত্র গুঁড়া করিয়া কপিলা গাইয়ের দুধের সহিত মিশাইয়া বড়ি প্রস্তুত করিতে হইবে। পরে নিজের গালে ঐ বড়ি ঘষিয়া তিলক অঙ্কন করিলে সমগ্র জগৎ মোহিত হইবে।

ত্রিলোক মোহিত করা

ত্রিলোক মোহিত করাঃ মনঃশীলা, হরিতাল, কৃষ্ণ ধুতুরার ফুল ও মৌমাছির পাখা সমানভাগে লইয়া বড়ি প্রস্তুত করিয়া ঐ বড়ি দ্বারা নিজের কপালে তিলক অঙ্কন করিলে ত্রিলোক মোহিত হইবে।

মানুষের সামনে দাঁড়িয়ে মানুষকে মোহিত করা

মানুষের সামনে দাঁড়িয়ে মানুষকে মোহিত করাঃ সিন্দুর, কুঙ্কুম ও গোরোচনা আমলকীর রসে পেষণ করিয়া কপালে তিলক প্রদান করিয়া কাহারও সম্মুখে দাঁড়াইলে সে মোহিত হইবে। সকল লোককেই ইহা দ্বারা মোহিত করা যায়।

ত্রিভূবনের সকলকেই মোহিত করা

ত্রিভূবনের সকলকেই মোহিত করাঃ ভৃঙ্গরাজ, কেশুত্তে, লজ্জাবতীলতা ও বেড়েলা একত্রে পিষিয়া তদ্‌দ্বারা তিলক ধারণ করিলে ত্রিভুবন মোহিত হইবে।

ত্রিভূবন মোহিত করার মন্ত্র

ত্রিভূবন মোহিত করার মন্ত্রঃ ভৃঙ্গরাজ, দন্ডোৎপলও গোরোচনা একত্রে পিষিয়অ কপালে তিলক ধারণ করিলে ত্রি-জগৎ মোহিত হইবে। ঐ দ্রব্য নিম্নমন্ত্রে সাতবার অভিমন্ত্রিত করিয়া চোখে কাজল দিলে ত্রিভূবন মোহিত হইবে। মন্ত্রঃ- “ওঁ সর সর ওঁ ওঁ স্বাহা”

যেকোন লোককেই মোহিত করা

যেকোন লোককেই মোহিত করাঃ কলার রসে হরিতাল, অশ্বগন্ধা ও গোরোচনা পেষণ করিয়া যদি নিজ কপালে তিলক প্রদান করা যায় তাহা হইলে সমস্ত লোককেই মোহিত করা যায়।

যে কোন ব্যক্তি মোহিত করা

যে কোন ব্যক্তি মোহিত করাঃ সিন্দুর ও শ্বেত আকন্দের মূল কলার রসে পেষণ করিয়া নিজের কপালে তিলক প্রদান করিলে যে কোন ব্যক্তি মোহিত হইবে, ইহাতে কোন সন্দেহ নাই।

সমস্ত লোককেই মোহিত করা

সমস্ত লোককেই মোহিত করাঃ দাড়িমের মূল, ছাল, পত্র, ফল ও বীজ একত্রে লইয়া শ্বেত কুচসহ নিজ কপালে তিলক প্রদান করা যায় তাহা হইলে সমস্ত লোককেই মোহিত করা যায়।

মোহনী বিদ্যা

মোহনী বিদ্যাঃ মোহিনী বিদ্যা অপরকে মোহিত করিবার যে বিদ্যা। আপাত দৃষ্টিতে এই বিদ্যাকে যতটা সহজ বলিয়া মনে হয় তাহা নহে। উপযুক্ত গুরুর উপদেশক্রমে এই বিদ্যার ব্রতী হইতে হয়। তবে আত্মনির্ভরতা, নিষ্ঠা ও গুরুভক্তি থাকিলে এ বিদ্যা আয়ত্ত করা বিশেষ কঠিন হইবে না। যাহারা এই বিদ্যায় সিদ্ধিলাভ করিবেন তাহারা নিজেদের ইচ্ছামত...

error: Content is protected !!